Animals

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি এই সম্পর্কে যারা জানতে চান তাদের জন্য এই পোস্টটি। আজকে আমরা বিস্তারিতভাবে জানবো বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি এই সম্পর্কে ।

আমাদের পৃথিবীতে অন্যান্য পশু -পাখির মধ্যে বিড়াল একটি আদর্শ ও সুন্দর প্রাণী। এছাড়া বিড়াল একটি গৃহপালিত প্রাণী। আপনি যদি কোনো প্রাণী পালতে চান তাহলে অবশ্যই বিড়াল পালতে পারেন।

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

কারন বিড়ালের অনেক উপকারিতা রয়েছে । বিড়াল পাললে আপনাকে আনন্দ তো দিবেই, সেই সাথে আপনার ঘরে নিরাপত্তাও দিবে। বিড়াল আপনার পরিবারের সুরক্ষায় ভূমিকা রাখে ।

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

আপনি জানলে অবাক হবেন আন্তর্জাতিক ভাবে বিড়াল দিবস পালন করা হয়। প্রতি বছর ৮ ই আগস্ট বিড়াল দিবস পালন করা হয়। বিশ্বব্যাপী বিড়াল এর প্রতি মানুষের ভালোবাসা বৃদ্ধি ও বিড়াল এর প্রতি সচেনতা বৃদ্বি করা, বিড়াল প্রতি বন্ধুত্ব সুলভ আচরণ করা কে লক্ষ করে এই বিশেষ দিন টি পালিত হয়ে আসছে।

বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে পুরুষ ও মহিলা ব্যক্তিদের মধ্যে বিশেষ করে মহিলারা তারা তাদের অংশীদারদের (মানে জীবন সঙ্গী ) চেয়ে বিড়াল এর সাথে সময় কাটাতে ও ঘুমাতে বেশি পছন্দ করে থাকে।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় ৪২ % মানুষ তার পোষা বিড়ালের কারণে অনেক ভালো ঘুমিয়েছে। যেখানে ১৫ % বলেছেন তাদের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

এখন আপনাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করবো বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি সে সম্পর্কে । চলুন তাহলে দেখে নেওয়া যাক বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি :

বিড়াল আপনার জীবনে একাকীত্ব দূর করে

আপনার জীবনে একাকীত্ব দূর করার জন্য বিড়াল অনেক প্রয়োজনীয় ভূমিকা পালন করে থাকে। আপনি যখন নিজেকে অনেক একা মনে করবেন এবং একাকীত্ব থাকার কারনে মনে অনেক কষ্ট পান। তখন একটি বিড়াল এনে পালুন।

দেখবেন বিড়াল আপনার সাথে সময় দিবে এবং তার সাথে খেলুন, তাহলে দেখবেন আপনার মনের কষ্ট দূর হয়ে যাবে। বিড়ালের সাথে খেলার কারনে আপনার একাকী জীবন দূর হয়ে যাবে। আপনি জীবনে অনেক সুখী থাকবেন।

বিড়াল অশুভ ছায়া বা নেগেটিভ এনার্জি দুর করে

আপনার ঘর বাড়িতে যদি কোনো অশুভ ছায়া থাকে অথবা নেগেটিভ এনার্জি থাকে ,তাহলে বিড়াল এর কারণে তা দূর হয়ে যায় । বাড়িতে থাকা নেগেটিভ এনার্জি ও অশুভ ছায়ার বিরুদ্ধে বিড়াল লড়াই করতে পারে।

তাই বাড়িতে বিড়াল পালুন। কারণ বাড়িতে বিড়াল থাকলে এই সব অশুভ ছায়া টিকে থাকতে পারেনা। বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে বিড়াল অশুভ বস্তু বা খারাপ ছায়া, নেগেটিভ এনার্জি দূর করতে সাহায্য করে থাকে।

বিড়ালের আপনার শিশুকে অনেক আনন্দ দিবে

আপনার পরিবারে যদি ছোট শিশু থাকে, তাহলে তাকে একটি বিড়াল এনে দিন। বিড়ালের সাথে আপনার শিশুটি খেলাধূলা করে অনেক আনন্দ পাবে। আপনিও আপনার বাচ্চাদের পশু -পাখি ও প্রাণীর প্রতি সদয় হওয়া শিখাতে পারবেন।

বিড়াল অটিষ্টিক শিশুদের জন্য বেশ উপকারি

বিড়াল কিন্তু অটিষ্টিক শিশুদের জন্য বেশ উপকারি। কারন আপনার অসুস্থ শিশুটি যদি বিড়ালের সাথে সারাদিন খেলাধূলা করে , তাহলে এর কারনে আপনার শিশুটির ব্রেইন এর অবস্থার অনেক উন্নতি সাধন হবে।

বিড়াল কেবল এই শিশুদের সঙ্গ দিবে না, বরং আপনার শিশুদের চিকিৎসা ক্ষেত্রেও সহায়তা করবে। অটিস্টিক শিশুদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক ও কার্যকরি একটি মাধ্যম হচ্ছে বিড়াল। তাই বিড়াল পালার কারনে আপনার শিশুটি অনেক হাসি খুশি থাকবে এবং মনও ভালো থাকবে।

বিড়াল পালনে হার্ট অনেক সুস্থ্য থাকে

বিড়াল পালার কারনে আপনি অনেক হাসিখুশি থাকবেন । ফলে আপনার হার্ট অনেক সুস্থ্য থাকবে। যার জন্য আপনার হৃদ রোগের ঝুঁকি কমবে । অনেক গবেষণায় দেখা গেছে যারা বিড়াল পালেন তাদের মানসিক চাপ কম থাকে।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে বিড়াল আপনার স্ট্রোক সহ বিভিন্ন হৃদ রোগের ঝুঁকি প্রায় ৩০ শতাংশ কমিয়ে দিতে পারে। যার ফলস্বরূপ আপনার কার্ডিওভাস কুলার রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে থাকে।

বিড়াল পালনে মানুষের রাগ ও উদ্বেগ কমে

বিড়াল পালনের কারনে একজন মানুষের রাগ ও উদ্বেগ কমে। প্রায় অনেক গবেষণায় দেখা গেছে, যখন কোনো ব্যাক্তি বা মানুষ বিড়ালের সাথে সময় কাটায়। তখন তাদের শরীরে প্রশান্তি ও আরাম দায়ক রাসায়নিক পর্দাথর নিঃসরন বৃদ্ধি পায়।

তাই বিড়াল একজন ব্যাক্তি বা মানুষের রাগ, উদ্বেগ ও মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রন করতে সাহায্য করে থাকে। তাই দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে ও মানসিক চাপ কমানোর উপায় সিহেবে বিড়াল পালতে পারেন।

বিড়াল ইঁদুর তাড়াতে সাহায্য করে থাকে

যদি আপনার ঘরে বাড়িতে প্রচুর পরিমানে ইঁদুর থাকে। আর সেই ইঁদুর এর জ্বালায় আপনি অতিষ্ট ,ঘরের আসবাবপত্র সব নষ্ট করে দিচ্ছে। আর এই ইঁদুর এর অতিষ্ট থেকে বাঁচার জন্য আপনি বিড়াল পালতে পারেন।

দেখবেন বিড়াল আপনার ঘরের সব ইঁদুর তাড়িয়ে দিবে অথবা মেরে ফেলবে। বিড়াল ইঁদুর এর জ্বালাযন্ত্রণা থেকে আপনকে মুক্ত করবে।

বিড়াল শিশুর এলার্জি হওয়ার ঝুঁকি কমায়

বিড়াল পালনের কারনে শিশুর এলার্জি হওয়ার ঝুঁকি অনেক পরিমানে কমে। ২০০২ সালে ন্যাশনাল হেলথ ইনিস্টিউট এ এক গবেষণায় দেখা যায়, যাদের ঘরে ছোট শিশু রয়েছে তারা যদি বিড়াল পালেন এবং শিশুদের সাথে বিড়ালকে খেলা করতে দেন, তাহলে দেখবেন আপনার শিশুর বিভিন্ন ধরনের এলার্জি হওয়ার সম্ভবনা অনেকাংশে কম থাকবে।

বিড়াল স্নায়ুবিক অবস্থার উন্নতি সাধন করে

বিড়াল যখন গরগর শব্দ করে তখন আমাদের স্নায়ুবিক অবস্থার অনেক উন্নতি সাধন করে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে বিড়াল এর গরগর শব্দ চিকিৎসা বিজ্ঞানের থেরাপির মাত্রা ২৫ থেকে ১৫০ হার্জ।

বিড়াল এর গরগর শব্দের কারণে হাড়ের অসুখ ,শরীরের ব্যাথা , পেশী ও রজার সম্যসা দূর করা যায়। এই জন্য আপনি বিড়াল পালতে পারেন।

বিড়াল পালনে খরচ কম লাগে

বাড়িতে বিড়াল পালনে তেমন একটা খরচ করতে হয় না। বিড়াল অনেক কম পরিমানে খাবার খায়। অন্যান্য পশু – পাখির পিছনে যেমন অনেক খরচ করতে হয় , বিড়াল এর পিছনে তেমন খরচ করতে হয় না। বিড়াল মাছ ভাত খেতে খুব ভালবাসে ।

আমাদের এই পোস্টটি পড়ে আপনারা বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি এই সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আশা করি আমাদের এই পোস্টটি আপনাদের অনেক সহায়তা করেছে বিড়াল সম্পর্কে জানতে। এইরকম আর ও সুন্দর সুন্দর পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে যুক্ত থাকুন ।

তাহলে আমরা এতক্ষণ জানলাম বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি এই সম্পর্কে । আশা করি আমরা আপনাদেরকে বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত ও সঠিক তথ্য প্রদান করতে পেরেছি ।

বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি তা জেনে আপনি আপনার বাড়িতে বিড়াল পালবেন কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

আরও নিত্য নতুন টিপস পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং ফেসবুক পেজে এ লাইক দিয়ে সাথে থাকুন । বিড়ালের উপকারিতা কি বা বিড়াল পালনের উপকারিতা কি কি

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

You cannot copy content of this page