Beautiful Name

নবীদের মেয়ের নাম কি কি

আজকে আমরা জানবো নবীদের মেয়ের নাম কি কি তার সম্পর্কে । নবীদের মেয়ের নাম এর মধ্যে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর মেয়ের নামগুলো বেশী জনপ্রিয় । তাই আজকে আমরা নবীদের মেয়ের নাম এর মধ্যে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর মেয়ের নামগুলো নিয়ে আলোচনা করবো ।

নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম

নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম

আমাদের প্রিয় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর চার জন কন্যা ছিলেন। তারা হলেন :

১) হযরত জয়নব (রাঃ) নবীদের মেয়ের নাম কি

২) হযরত রুকাইয়া নবীদের মেয়ের নাম কি

৩) হযরত উম্মে কুলসুম নবীদের মেয়ের নাম কি

৪) হযরত ফাতেমা (রাঃ) নবীদের মেয়ের নাম কি

কিছু প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে যে, হযরত জয়নব (রাঃ) তিন বোনের মধ্যে সবচেয়ে বড় ছিলেন।

নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম কি :

হযরত জয়নব বিনতে মুহাম্মদ

জয়নব ছিলেন হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর জ্যেষ্ঠ কন্যা। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর নবুওয়াত হওয়ার দশ বছর আগে জয়নবের জন্ম হয়েছিলো।

জয়নব এর স্বামী আবু আল-আস ইবনে আর বাবিয়া ইসলামের গ্রহণের আগে জয়নব কে বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু তারপর ইসলামে প্রবেশ করেছিলেন। যদি ও তার স্বামী ইসলামের প্রতি অবিশ্বাসী ছিলেন। জয়নব মক্কায় তার স্বামীর সাথে ছিলেন এবং তাঁর থেকে আবদুল্লাহ নামে একটি পুত্র ছিল ।

সেই পুত্র টি ছোট বেলায় মারা গিয়েছিল এবং একটি কন্যা ছিল যার নাম উমামা ছিল। জয়নব রসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সাথে মদিনায় হিজরত করেননি। কিন্তু পরে হিজরত করেন।

আবু আল-আস ইসলামে প্রবেশ এর পর মদিনায় হিজরত করতে চলে যান। তাই নবী মুহাম্মদ (সাঃ) তার মেয়ে জয়নব (রাঃ) কে আবু আল-আস এর কাছে ফিরিয়ে দেন। জয়নব (রাঃ) তাঁর স্বামী ইসলামে প্রবেশ এর পর বেশি দিন বেঁচে ছিলেন না। কারণ তিনি হিজরত এর পর অষ্টম বছর এ ইন্তেকাল করেন।

যখন তিনি মারা যান, তখন তিনি তার ছোট মেয়ে উমামাকে রেখে যান । যাকে নবী মুহাম্মদ (সাঃ) নামাযে যাওয়ার সময় কাঁধে নিয়ে যেতেন এবং নামায শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনি সিজদাহ করার সময় তাকে মাটিতে রাখতেন। নামাযের পর আবার তাকে নিয়ে যেতেন।

হযরত রুকাইয়া বিনতে মুহাম্মদ

হযরত রুকাইয়ার জন্ম হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর নবুওয়াত হওয়ার সাত বছর আগে। তিনি উসমান ইবনে আফফান (আঃ) কে বিয়ে করেন।

উসমান (রাঃ) এবং তার স্ত্রী রুকাইয়াহ ছিলেন মুসলমানদের প্রথম দল যারা তাদের ধর্ম রক্ষার জন্য আবিসিনিয়ায় হিজরত করেছিলেন।

রূকাইয়া আবিসিনিয়ায় তার পুত্র আবদুল্লাহর জন্ম দেন এবং কিছু সময়ের পর উসমান (রাঃ) এবং তার স্ত্রী রুকাইয়া একদল মুসলমানের সাথে মক্কায় ফিরে আসেন যারা আবিসিনিয়ায় হিজরত করেছিল ।

যাইহোক, রুকাইয়া (রাঃ)মক্কায় বেশিদিন অবস্থান করেন নি। কারন তিনি শীঘ্রই তার স্বামী উসমান (রাঃ) সাথে আবার মদিনায় হিজরত করেন।

পরে, রুকাইয়া (রাঃ) জ্বরে আক্রান্ত হন, তাই তার স্বামী উসমান (রাঃ) তার দেখাশোনা করার জন্য তার সাথে থাকেন যখন মুসলিমরা বদরের যুদ্ধে চলে যায়।

উসমান তাদের সাথে যোগ দিতে অক্ষম ছিলেন কারন নবী মুহাম্মদ (সাঃ) তাকে তার স্ত্রী রুকাইয়ার সাথে থাকার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

একই সময়ে যায়েদ ইবনে হারিথা ফিরে এলেন এই সংবাদ নিয়ে যে , বদর যুদ্ধে মুসলমানদের বিজয় হয়েছে। এরপর রুকাইয়া (রাঃ) মারা গেছেন।

উম্মে কুলসুম বিনতে মুহাম্মদ

উম্মে কুলসুম নবী মুহাম্মদের নবুওয়াত হওয়ার ছয় বছর আগে জন্মগ্রহণ করেন। হযরত মুহাম্মদ (সা.) উম্মে কুলসুমকে উসমান (রা.)-এর সাথে বিয়ে করিয়েছিলেন তার বোন রুকাইয়া মারা যাওয়ার পর।

উম্মে কুলসুম ছিলেন নবীর সেই কন্যা যিনি তার বোন রুকাইয়া মারা যাবার পর উসমানকে বিয়ে করেছিলেন। এ কারণে উসমানকে দুই আলোর অধিকারী বলা হয়।

হিজরতের নবম বছর শাবানে উম্মে কুলসুম মারা না যাওয়া পর্যন্ত উম্মে কুলসুম উসমান (রা:)-এর কাছেই ছিলেন, যদিও তাঁর কোনো সন্তান ছিল না। উম্মে কুলসুমকে তার বোন রুকাইয়া এর পাশে দাফন করা হয়েছিল।

ফাতেমা বিনতে মুহাম্মদ ( যাকে আজ জাহরাহ বলা হয় )

হযরত ফাতেমা (রাঃ) নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর নবুওয়াতের পাঁচ বছর আগে জন্ম গ্রহন করেন। হযরত ফাতেমা (রাঃ) তার পিতাকে কুরাইশদের দ্বারা ক্ষতি সহ্য করতে সাহায্য করেছিলেন।

যখন ফাতেমা নবী মুহাম্মদের ঘরে প্রবেশ করতেন , নবী (সাঃ) তাকে চুম্বন করার জন্য দাড়াতেন এবং তাকে তার সাথে বসাতেন। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) তাকে এতই ভালোবাসতেন যে তিনি বলেছিলেন ”ফাতেমা আমার একটি অংশ , তাই যে কেউ তাকে বিরক্ত করলে আমাকে বিরক্ত করে” (আল বুখারি দ্বারা বর্ণিত ) ।

হিজরতের পর দ্বিতীয় বছরে ফাতেমা – আলী ইবনে তালিব (রাঃ) কে বিয়ে করেন। তাদের দুইজন ছেলে সন্তান হয়, আল হাসান, তারপর আল হুসাইন।

তাহলে আমরা এতক্ষণ জানলাম নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম । আশা করি নবীদের মেয়ের নাম কি কি বা নবীজির মেয়ের নাম কি বা নবীজির চার মেয়ের নাম পোস্ট টি পরে আপনি একটি সঠিক ধারনা পেয়েছেন । এইরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে যুক্ত থাকুন।

আরও নিত্য নতুন টিপস পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং ফেসবুক পেজে এ লাইক দিয়ে সাথে থাকুন । নবীদের মেয়ের নাম কি নবীদের মেয়ের নাম কি

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

You cannot copy content of this page